Freelancing guideline bangla tutorial

ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য সবচেয়ে বড় গাইড লাইন (পার্ট- ২)

ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য সবচেয়ে বড় গাইড লাইন (পার্ট- ১) এ আমি আপনাদেরকে কিছু স্টেপ্ দেখিয়েছিলাম, যে স্টেপ গুলো অনুসরন করে একজন ব্যাক্তি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারবে। যদি কেউ আগের পার্টটি পড়ে না থাকেন তাহলে নিচের লিংক থেকে পড়ে নিতে পারেন। আজকের এই পার্টে আমি স্টেপ গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

১। মাইন্ড সেটআপ করা

মাইন্ড সেটআপ করা বলতে বুঝায় আপনার মনটাকে ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য তৈরি করা। আথবা এভাবে বলা যেতে পারে আপনি কি বিষয় নিয়ে ফ্রিল্যান্সিং করতে চাচ্ছেন সেটা নিয়ে একটু চিন্তা করা। এমন না যে ওমুকে ওয়েব ডিজাইন করে ফ্রিল্যান্সিং করছে আমিও ওয়েব ডিজাইনার হব। এভাবে সিদ্ধন্ত নিলে ভুল হবে। কারন অমুকের ওয়েব ডিজাইন করতে ভালোলাগে কিন্তু আপনাকে ভাল নাও লাগতে পারে। এতে আপনি ওয়েব ডিজাইন শুরু করার কিছুদিন পর দেখা যাবে ছেড়ে দিয়েছেন। তাই আপনাকে ভালোলাগে এমন একটি বিষয় বাছাই করতে হবে। আপনাকে যদি আঁকাআঁকি ভালোলাগে তাহলে আপনি গ্রাফিক ডিজাইন করতে পারেন, আপনাকে যদি কোডিং করতে ভালোলাগে তাহলে আপনি ওয়েব ডিজাইন করতে পারেন, আপনাকে যদি ভিডিও বানাতে ভালোলাগে তাহলে আপনি ভিডিও ইডিটিং করতে পারেন অথবা আপনাকে যদি লেখালেখি ভালোলাগে তাহলে আপনি কন্টেন্ট রাইটিং করতে পারেন। এছাড়াও আরো অনেক বিষয় আছে অনলাইনে কাজ করার জন্য। এগুলো আপনারা গুগোলে সার্চ দিয়ে দেখে নিতে পারেন।

২। নির্দিস্ট একটি বিষয় বাছাই করা

এভাবে একটু ঘাটাঘাটি এবং চিন্তা করে বের করা কোন জিনিসটি আপনাকে ভালো লাগে। অতঃপর সেই জিনিসটির উপর একটি নির্দিস্ট বিষয় বাছাই করা যেটি ভালোভাবে শিখে আপনি ফ্রিল্যান্সিং করবেন।

৩। বিষয়টি সম্পর্কে প্রশিক্ষন নেয়া

একটি নির্দিস্ট বিষয় বাছাই করার পর ওই বিষয়ের উপর আপনাকে প্রশিক্ষন নিতে হবে। প্রশিক্ষনের ব্যাপারে আমি বলবো সবচেয়ে ভাল এবং সহজ উপায় হচ্ছে ইউটিউব। এছাড়াও অনলাইনে আরো অনেক পেইড কোর্স আছে আথবা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ডিভিডি অনলাইনে অর্ডার দিয়ে নিতে পারেন। এগুলোর কোনোটিই যদি আপনাকে ভাল না লাগে তাহলে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে কোর্স করে নিতে পারেন।

৪। প্রশিক্ষনের পর কয়েকটি প্রজেক্ট প্রাক্টিস করা

আপনার শেখা শেষ হলে আপনি ওই বিষয়ের উপর নিজে নিজেই কয়েকটি প্রজেক্ট প্রাকটিস করবেন। আমি বলব কমপক্ষে পাঁচটি প্রজেক্ট আপনি নিজে নিজে করুন। এমন না যে আপনি আপনার কোর্সের সোর্স ফাইল দেখে দেখে কয়েকটি প্রজেক্ট তৈরি করলেন। আপনাকে না দেখে ভিন্নধর্মী প্রজেক্ট তৈরি করতে হবে। প্রজেক্টটি ঠিক হল কিনা সেটা যাচাই করার জন্য ফেসবুকে বিভিন্ন গ্রুপের হেল্প নিতে পারেন।

৫। মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে জানা

এভাবে কয়েকটি প্রজেক্ট শেষ করতে পারলে আপনি মার্কেটপ্লেসে কাজ করার জন্য তৈরি। এখন আপনাকে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে ধারনা নিতে হবে। কোন মার্কেটপ্লেস কেমন, কোন মার্কেটপ্লেস কিভাবে কাজ করে, কিভাবে মার্কেটপ্লেসে অ্যাকাউন্ট খুলতে হয়, কিভাবে গিগ তৈরি করতে হয়, কিভাবে বিড করতে হয়, কিভাবে কভার লেটার লিখতে হয়, কিভাবে কাজ জমা দিতে হয় ইত্যাদি বিষয় গুলে জানতে হবে। এই প্রত্যেকটি বিষয় গুগোল-ইউটিউবে সার্চ দিয়ে জেনে নিতে হবে।

৬। মার্কেটপ্লেসে অ্যাাকাউন্ট তৈরি করা ও বিড করা

এভাবে মার্কেটপ্লেসের সমস্ত খুটিনাটি বিষয় গুলো জানার পর মার্কেটপ্লেসে অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে এবং অ্যাকাউন্টটি ১০০% কম্পিলিট করতে হবে। এরপর আপনি বায়ারদের জব গুলো দেখবেন। যেটি আপনি শতভাগ নিশ্চিত যে করতে পারবেন শুধু সেই সব জবে আপনি বিড করবে। এবং বিড করার সময় আপনি তাকে বুঝাতে চেষ্ঠা করবেন যে আপনি তার কাজটি বুঝেছেন এবং করতে পারবেন। কিভাবে করবেন সেটাও বুঝানোর চেষ্ঠা করবেন।

৭। বায়ারের চাহিদা অনু্যায়ী কাজ করে দেওয়া এবং জমা দেওয়া

কাজ পাওয়ার পর আপনাকে বায়ারের চাহিদা অনু্যায়ী কাজ করে এবং জমা দিতে হবে। এজন্য কাজের বিবরনিটা ভাল করে পরে নিবেন। না বুঝলে বারবার পড়বেন। পুরোপুরি বোঝার পর আপনি কাজ শুরু করবেন এবং নির্দিস্ট সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করতে হবে। কাজ শেষ হলে তা জমা দিতে হবে।

৮। মার্কেটপ্লেস থেকে টাকা ঊঠানো

এভাবে কাজ শেষ করে জমা দিলে বায়ার কাজটি গ্রহন করলে একটি নির্দিস্ট সময় পর টাকা আপনার মার্কেটপ্লেসের অ্যাকাউন্টে জমা হয়ে যাবে। এরপর আপনি সেখান থেকে ব্যাংকের মাধ্যমে উইথড্র দিতে পারবেন। কি ভাবে উইথড্র দিবেন সেটার জন্য গুগোল-ইউটিউবে সার্চ দিয়ে জেনে নিতে পারবেন। তবে একটা কথা মাথায় রাখতে হবে মার্কেটপ্লেস থেকে টাকা ঊঠানো কিন্ত অনেক সহজ তাই এটা নিয়ে আগেই মাথ না ঘামালেও চলবে। আপনি টাকা ইনকাম কতে পারলে টাকা উঠাতে পাবেনই এটানিয়ে টেনশনের কিছু নেই।

উপরের স্টেপগুলো মেনে চললে আশকরি অবশ্যই একজন বেক্তি ভাল ফ্রিল্যান্সার হতে পারবে এবং সফলতা আসবে। পোস্টটি ভাল লাগলে অবশ্যই শেয়ার করবেন এবং আরো কছু জানার থাকলে কমেন্টস করুন। ধন্যবাদ

আগের পার্টের লিঙ্ক…

ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য সবচেয়ে বড় গাইড লাইন (পার্ট- ১)

পোস্টটি শেয়ার করুন

One Reply to “ফ্রিল্যান্সিং শেখার জন্য সবচেয়ে বড় গাইড লাইন (পার্ট- ২)”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।